তারিখঃ ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আড়াইহাজারে রাস্তায় কাঁদায় যানবাহনের গড়াগড়ি, চরম জনদুর্ভোগ

আড়াইহাজার প্রতিনিধি:
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার জাঙ্গালিয়া-আড়াইহাজার সদর পর্যন্ত ১১ কিলোমিটার সড়কটি খানাখন্দে ভরপুর। তবে সম্প্রতি রাস্তার বেশ কিছু স্থানে বালি ও ইটের সুরখি ফেলে গর্ত ভরাট করা হয়েছে। এতে কিছুটা হলেও দুর্ভোগ করেছে। কিন্তু এখনো কিছু অংশে রয়েছে গর্ত। তাতে বৃষ্টির পানি জমে পরিণত হয়েছে ডোবায়। এতে প্রতিদিন ছোট বড় অসংখ্য যানবাহন আটকে যাচ্ছে। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এই রাস্তায় চলাচলরত বিপুল সংখ্যক মানুষকে। উপজেলা সদরে প্রবেশের মুখেই বেশ অংশে গর্তে পানি জমে যানবাহন চলাচলে মারাত্মক ব্যাঘাত সৃষ্টি হচ্ছে। প্রতিদিন উপজেলা দক্ষিণ এলাকার কয়েকটি ইউনিয়নের প্রায় ৫০ হজারের মতো মানুষ এই রাস্তায় চলাচল করছেন। এই স্থানে পৌঁছে যানবাহনগুলো গতে আটকে কাঁধার সঙ্গে গড়াগড়ি করছে।

সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে, উপজেলার দক্ষিণ এলাকার কয়েকটি ইউনিয়ন থেকে প্রতিদিন উপজেলা সদরে প্রায় ৫০ হাজারের মতো মানুষ এ রাস্তা দিয়ে যাতায়ত করছেন। রাস্তার বিভিন্ন স্থানে গর্তে পানি জমে যেন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়ে পড়েছে। তবে সম্প্রতি কিছু স্থানে গর্ত ভরাট করা হয়েছে। কিন্তু এখানো কিছু অংশে গর্ত রয়ে গেছে। তাতে বৃষ্টির পানি জমে রীতিমতো ডোবায় পরিণত হয়ে পড়েছে। এতে প্রতিদিন যানবাহন আটকে যাচ্ছে। দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। উপজেলা এলজিইডির অফিস সূত্রে জানা গেছে, রাস্তার সংস্কার কাজের টেন্ডার কয়েকবার হলেও রহস্যজনক কারনে সংস্কার কাজ ধরা হয়নি। তবে জনদুর্ভোগ লাঘবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সম্পতি পুরো রাস্তার কিছু অংশের গর্ত ভরাট করেছে। এতে দুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমে এসেছে। তবে উপজেলা সদরে প্রবেশ মুখের অংশে এখনো সংস্কারের ছোঁয়া লাগেনি। এখানে গর্তে বৃষ্টি পানি জমে রীতিমতো ডোবায় পরিণত হয়েছে। প্রতিদিন যানবাহন গর্তে পড়ে মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সিএনজি চালক আবুল হোসেন জানান, রাস্তার অনেক অংশের গর্তে বালি ও সুরখি ফেলে ভরাট করা হয়েছে। এতে দুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমেছে। তবে উপজেলা সদরে ঢুকার অংশে এখনো বড় বড় গর্ত রয়েছে। তাতে ফেলা হয়েছে শুধু বালি। এতে বৃষ্টি পানি জমে কাঁধা জমে গেছে। প্রতিদিন বিপুল সংখ্যক গাড়ী আটকে যাচ্ছে। এতে যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। নষ্ট হচ্ছে গাড়ীর যন্ত্রাংশ। স্থানীয় বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকরা জানান, রাস্তায় গাড়ী চলাচলে অনেক সমস্যা হয়ে পড়েছে। এতে দুই পাশে গড়া উঠা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ক্রেতা আসছে না। মালামালা গাড়ী থেকে উঠানো-নামানোয় অনেক সমস্যা হচ্ছে। এতে তারা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। এদিকে আড়াইহাজার উপজেলা চেয়ারম্যান মুজাহিদুর রহমান হেলো সরকার বলেন, দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ লাঘবে রাস্তার অধীকাংশ স্থানে গর্ত ভরাট করা হয়েছে। বাকী অংশগুলো দ্রæত সময়ের মধ্যে  ভরাট করা হবে।

পোষ্টটি শেয়ার করুনঃ

About Author

আড়াইহাজারের সময়

আড়াইহাজারের সময় হলো সবচেয়ে দ্রুত জনপ্রিয় হওয়া ওয়েব পোর্টাল। আড়াইহাজারের মানুষের সবচেয়ে বিশ্বস্ত পত্রিকা। আড়াইজারের সময়ের সাথেই থাকুন। আমরা সর্বদা সত্য প্রকাশে অবিচল।

Comments are closed.